» করোনা কি অভিশাপ নাকি…

প্রকাশিত: ২৯. এপ্রিল. ২০২০ | বুধবার

করোনা কি অভিশাপ নাকি অন্যকিছু!
বিন আরফান

বহুদিন হয় মনখুলে কলম ধরি না। একটা পথে নিজেকে ধাবিত করায় নিজের আত্মতুষ্টি জলাঞ্জলি দিয়েই পথটা দীর্ঘ দুই বছর চলে আসছিলাম। অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের পর মনে হলো পথটা আমার জন্য নয়। পুনরায় কলম চালাতেই মগ্ন হলাম।

মন খোঁজছিল করোনা এতো দীর্ঘায়িত কেন! কেন! আমি জীবনের প্রতিটা চিন্তা-চেতনায় কুরআন-হাদিসকেই চোখের সামনে রাখতে শান্তি খুঁজি আর পছন্দ করি।
হাদিস হলো সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব রাসূল স. এর কথা আর আমল। হাদিস বিশারদগণ হাদিসের গুরুত্ব আর মর্যাদা ও গ্রহণযোগ্যতা বিবেচনা করে একে নানা ভাগে বিভক্ত করেছেন। তন্মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হাদিস হিসাবে চিহ্নিত করেছেন হাদিসে কুদসীকে।

হাদিসে কুদসী হলো ওই সমস্ত হাদিস, যেসব কথা আল্লাহর রাসূল সা. হতে বর্ণিত তবে মূলকথা ছিল সুমহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর।
কোরআনে যদি আরো কয়েকটা কথা আল্লাহ সংযুক্ত করতে চাইতেন, তাহলে হাদিসে কুদসী হতে বাণীগুলোই সংযুক্ত হতো।

তেমনই একটি হাদিসে আল্লাহর রাসূল স. বলেন, তাঁকে আল্লাহ বলছেন, একদা আল্লাহর দুই বান্দা নানাবিধ সংকটে আল্লাহকে ডাকছিলেন। একজন ছিল আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাসী এবং আমলদার। আরেরজন ছিল অবিশ্বাসী।

বিপদ দুই জনেরই। আল্লাহ জিবরাইল আ. কে পাঠালেন, তাদের সমস্যা কী, তারা কী চায়, জানার জন্য। যদিও আল্লাহ সবকিছুই জানেন, তবে এটা ছিল সুমহান আল্লাহর মানুষকে শিক্ষা দেয়ার কৌশল, কীভাবে পরামর্শের মাধ্যমে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে হয়।
তো জিবরাইল আ. গিয়ে দেখলেন, একজন ও গড, ও গড জপছে আর তার আর্থিক সংকট, দুরারোগ্যতা হতে পানাহ চাইছেন।

আরেকজন ইয়া আল্লাহ, ইয়া আল্লাহ জপছেন, তার অবস্থা আরো নাজুক৷ সেও পানাহ চাচ্ছেন।
জিবরাইল আ. ফিরে আল্লাহর নিকট ওসব বর্ণনা করলেন। একমাত্র ভরসাকারী আল্লাহ সিদ্ধান্ত দিলেন, যেই বান্দা ও গড, ও গড জপছে, তার সমস্ত সমস্যা সমাধান করে দাও।
আল্লাহর হুকুমে সমাধান করা হলো।

ওদিকে দুর্দশাগ্রস্থ বান্দা আহাজারি করে জপেই যাচ্ছেন, ইয়া আল্লাহ রহম করো, দয়া করো।
জিবরাইল আ. তার সম্পর্কে সিদ্ধান্ত চাইলে আল্লাহ বললেন, ওকে জপতে দাও। এ দুনিয়ায় ও জপতে থাকুক। ওর আল্লাহ আল্লাহ ডাকটা মধুর লাগছে। ওর ডাক আমার মনে ধরেছে। সুবহানাল্লাহ।

তার কারণ ছিল, যদি ওই লোকটারও সব সমস্যা দ্রুত সমাধান করা হতো, তাহলে সে ঐশ্বর্যে লিপ্ত হয়ে আল্লাহ ডাকতে ভুলে যেত। যার ডাক আল্লাহর নিকট ভালো লাগে, পরকালে তারজন্য সবচেয়ে বড় নেয়ামত অপেক্ষা করছে।

বর্তমান মহামারিতেও আমি উপলব্ধি করেছি মানুষ দিলখোলে মধুর মধুর সুরে আল্লাহকে ডাকছে আর স্মরণ করছে। হয়তো আল্লাহর এই ডাকগুলো মনে ধরেছে। হতাশ না হয়ে আসুন ডাকতে থাকি। ইনশাআল্লাহ ভালো কিছু অপেক্ষা করছে। এপারে না হলেও ওপারে।৷

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১০৩ বার

Share Button